রূপের  যত্নে গোলাপ জলের গুণের কথা কে না জানে। ত্বক, চুল ভাল রাখতে রোজ ওয়াটারের জুড়ি মেলা ভার। ঠিক কী কী কাজ করে গোলাপ জল? ত্বক বা চুলের জন্য কেন এত ভাল?

মুখে গোলাপ জল ছেটান : মুখে রোজ ওয়াটার ছেটালে চেহারায় ফ্রেশ ভাব আসবে। মেক আপ করার পর রোজ ওয়াটার ছিটিয়ে নিলে মুখে ভাল বসবে মেক আপ।

রুক্ষ চুল : রোজ ওয়াটার ও গ্লিসারিন সম পরিমাণ মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণ তুলোর সাহায্যে মাথার তালুতে লাগিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট মাসাজ করুন। ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করুন।

ফেশিয়াল ক্লিনজার : যে কোনও ধরনের ত্বকের জন্যই রোজ ওয়াটার ভাল ক্লিনজার। হালকা ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। এ বার এক টেবিল চামচ রোজ ওয়াটারের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা গ্লিসারিন মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে নিন।

ক্লান্ত চোখ : চোখ যদি ক্লান্ত, ফোলা ফোলা দেখতে লাগে তবে বরফ ঠান্ডা গোলাপ জলে তুলো ভিজিয়ে চোখের ওপর লাগিয়ে রাখুন ১০ মিনিট। চোখের ফোলা ভাব, লাল ভাব কমে যাবে।

হেয়ার কন্ডিশনার : শ্যাম্পু করার পর এক কাপ রোজ ওয়াটার দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। ন্যাচরাল কন্ডিশনার হিসেবে খুব ভাল কাজ করে গোলাপ জল।

ফেশিয়াল টোনার : ত্বক পরিষ্কার করার পর বরফ ঠান্ডা গোলাপ জলে তুলো ভিজিয়ে সারা মুখে লাগিয়ে নিন। রোজ ওয়াটার হাল্কা অ্যাস্ট্রিঞ্জেন্টের কাজ করে।

অ্যাকনে এক টেবিল চামচ রোজ ওয়াটার : এক টেবিল চামচ লেবুর রস মিশিয়ে অ্যাকনের ওপর লাগিয়ে ৩০ মিনিট রাখুন। পরিষ্কার জলে মুখ ধুয়ে নিন। যে কোনও ভাল ফেস প্যাক গোলাপ জলে গুলে মুখে লাগালেও উপকার পাবেন।
মেক আপ রিমুভার : গোলাপ জলের মধ্যে কয়েক ফোঁটা নারকেল তেল মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণ তুলোয় নিয়ে আলতো করে মেক আপ তুলতে পারেন। মেক আপ তোলার পাশাপাশি ত্বকে পুষ্টিও জোগাবে এই মিশ্রণ।

ত্বকের ট্যান দূর করে : দুই টেবিল চামচ ময়দার সঙ্গে লেবুর রস ও গোলাপ জল মিশিয়ে মিহি পেস্ট তৈরি করে নিন। ১৫ মিনিট রেখে জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

নিজেকে প্রশ্রয় দিন : আমন্ড তেল বা ক্রিমের সঙ্গে রোজ ওয়াটার মিশিয়ে নিয়ে গোটা শরীর ময়শ্চারাইজ করুন। ত্বক যেমন ভাল থাকবে, তেমনই ক্লান্তিও দূর হবে।