লেবুপানি বা লেবুর শরবত পছন্দ করেন না এমন লোক কমই আছে। প্রচণ্ড গরমে এক গ্লাস লেবুপানি আপনাকে প্রশান্তি দেবে। এ ছাড়া এটি ওজন কমাতেও সাহায্য করে। লেবুর স্বাস্থ্যকর গুণগুলো সহজেই এড়িয়ে যাওয়া যায় না। তবে বিশেষজ্ঞরা বলেন, যেকোনো খাবারই বেশি খাওয়া ঠিক নয়। খাবার যেমন আমাদের উপকার করে, তেমনি কোনো খাবার অতিরিক্ত খেলে শরীরে বিভিন্ন ধরনের সমস্যাও হয়।
এতে কোনো সন্দেহ নেই যে সকালে লেবুপানি খাওয়া শরীরের বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে সাহায্য করে, ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে কাজ করে। তবে অতিরিক্ত লেবুপানি খেলে কী ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়, সেটিও আমাদের জানা উচিত।
লাইফস্টাইল বিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাই জানিয়েছে অতিরিক্ত লেবুপানি পান করলে কী হয়।

বুক জ্বালাপোড়া : অতিরিক্ত লেবুপানি পান করা এসিডিটি, বুক জ্বালাপোড়া এবং এসিড রিফ্লাক্সের সমস্যা তৈরি করে। আপনি যদি নিয়মিত লেবুপানি পান করেন এবং এই ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হন, তাহলে এটি খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দেওয়ার পরামর্শই দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

পাকস্থলীর আলসার : লেবুর এসিডিক প্রকৃতি পাকস্থলীর আবরণকে ইরিটেট (বিব্রত) করে। এটি আলসার তৈরি করতে পারে। যাদের আলসারের সমস্যা রয়েছে, তাদের লেবুপানি পান না করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

বারবার প্রস্রাব হওয়া : বিশেষজ্ঞরা বলেন, বেশি লেবুপানি খাওয়া প্রস্রাবের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। লেবুর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন সি বা প্রাকৃতিক এসিড। এটির কারণে বারবার প্রস্রাবের বেগ চাপে। এমনকি বেশি পরিমাণ ভিটামিন সি খাওয়া ডায়রিয়া, পেট ব্যথা, বমি ভাব বাড়িয়ে দিতে পারে।

কিডনি অথবা পিত্তথলির সমস্যা : লেবুর খোসার মধ্যে রয়েছে অক্সালেটেড। এটি কিডনি ও পিত্তথলিতে ক্রিস্টাল তৈরি করতে পারে। যেসব লোকের এই ধরনের সমস্যা রয়েছে, তাদের এই খাবারটি এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শই দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

এ ছাড়া বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, যেকোনো ধরনের অসুস্থতার সময় লেবুপানি খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। যদি লেবুপানি খাওয়ার পর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়, তবে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যান।